বাড়িএক্সক্লুসিভ নিউজনদী ভাঙ্গনে বিলীন হচ্ছে বাউরভাগ মল্লিফৌদ রাস্তা, বিপাকে ৪ গ্রামের ৭ হাজার...

নদী ভাঙ্গনে বিলীন হচ্ছে বাউরভাগ মল্লিফৌদ রাস্তা, বিপাকে ৪ গ্রামের ৭ হাজার বাসিন্ধা


সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার জৈন্তাপুর ইউনিয়নের ওয়াপদা ডাইক হতে বাউরভাগ মল্লিফৌদ রাস্তাটি জনসাধারনের চলাচলের একমাত্র রাস্তা। সবুড়ী নদীর ভাঙ্গনের কবলে পড়ে রাস্তটি নদী গর্ভে বিলীন হ্েচ্ছ। ভাঙ্গনের কবল হতে রক্ষা পেতে মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়ের কামনা এলাকাবাসী।
সরেজমিনে মল্লীফৌদ গ্রামের বাসিন্ধা হাজী তবারক আলী, ইউপি সদস্য ইসমাইল আলী, সমাজসেবী মাওলানা আব্দুল হান্নান, আলী আকবর সহ এলাকার শতাধীক মানুষ প্রতিবেদককে জানান, সর্বনাশী সবুড়ী নদীর ভাঙ্গনের কবলে পড়ে গত কয়েক বৎসর হতে উপজেলার জৈন্তাপুর ইউনিয়নের মল্লিফৌদ, কান্দি, কাটাখাল, চাতলাপাড়, বাওন হাওর গ্রামের কয়েক হাজার জনসাধারনের চলাচলের রাস্তাটি নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়ে নদী গর্ভে বিলিন হচ্ছে।


মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়ের বরাদ্ধে ১কোটি ৩২লক্ষ ৩৮হাজার টাকা ব্যয়ে এলজিইডি প্রকল্পের আওতায় ওয়াপদা ডাইক হতে মল্লীফৌদ পর্যন্ত কার্পেটিংয়ের রাস্তার কার্পেটিং কাজ চলছে। সম্প্রতি বর্ষার শুরুতেই পাহাড়ী ঢলে সৃষ্ট বন্যায় বাউরভাগ মল্লিফৌদ রাস্তাটির বিভিন্ন স্থানে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। ভাঙ্গনের কারনে সরকারের উন্নয়ন মূলক কাজে বাঁধার সৃষ্টি হয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে সবুড়ী নদীর পাড় রক্ষার উদ্যোগ না নিলে নদী গর্ভে বিলিন হবে বাউরভাগ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাউরভাগ মল্লিফৌদ গ্রামের বাসিন্ধাদের বাড়ী ঘর, পীর সাহেবের মাজার ও মসজিদ, নষ্ট হবে প্রায় ৫হাজার হেক্টর ফসলী জমি, ৪গ্রামের ৭হাজার অধিক জনসাধারনের চলাচলের ওয়াপদা ডাইক হতে মল্লিফৌদ রাস্তাটি বিলিন হবে নদী গর্ভে।


এলাকাবাসী আরও জানান, আমরা দির্ঘ দিন হতে নদীর পাড় রক্ষা এবং জনসাধারনের চলাচলের রাস্তাটির উন্নয়ন কাজ শুরু হয়। এদিকে পাড় রক্ষার উদ্যোগ গ্রহণ না করা হলে উন্নয়ন মূলক কাজ সহ বর্ষা মৌসুমের শেষ হওয়ার পূর্বেই রাস্তাটি নদী গর্ভে বিলিন হবে। দ্রুত সময়ের মধ্যে সবুড়ী নদীর পাড় রক্ষার জন্য সিলেট ৪ আসনের সংসদ, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ইমরান আহমদের সুদৃষ্টি কামনা করেন এলাকাবাসী।

RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments